১৫ লাখ ডলার জেতার টাইগার চ্যালেঞ্জ শুরু

দেশের উদ্ভাবকদের জন্য ১৫ লাখ মার্কিন ডলার জেতার প্রতিযোগিতা টাইগার চ্যালেঞ্জ শুরু হচ্ছে।

আগামী ২ জুলাই থেকে প্রতিযোগিতাটি শুরু হচ্ছে। চলবে আগামী ৩০ আগস্ট পর্যন্ত।  অংশ নিতে নিবন্ধন করতে হবে এই ঠিকানায়

প্রতিযোগিতাটির আয়োজন করছে দেশের তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান টাইগার আইটি এবং যুক্তরাষ্ট্রের ম্যাসাচুয়েট ইনস্টিটিউট অব টেকনোলজি বা এমআইএসটি।

মঙ্গলবার রাজধানীর একটি হোটেলে সংবাদ সম্মেলন করে প্রতিযোগিতার আনুষ্ঠানিক ঘোষণা দেয় টাইগার আইটি। বাংলাদেশ পর্ব অনুষ্ঠিত হলে দেশের বিজয়ীরা আন্তর্জাতিক পর্বে বা চূড়ান্ত পর্বে অংশ নেবার সুযোগ পাবে।

সংবাদ সম্মেলনে বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্কের সাধারণ সম্পাদক মুনির হাসান জানান, প্রতিযোগিতায় দেশের যেকেউ অংশ নিতে পারবেন। ছাত্র, শিক্ষক, স্টার্টআপ কোম্পানি কিংবা হবু উদ্যোক্তা যে কেউ এই চ্যালেঞ্জে অংশ নিতে পারবে।।

তিনি জানান, বাংলাদেশের কল্যাণে অবদান রাখবে এমন যে কোনো টেকসই ও উদ্ভাবনী ধারণাকে বাস্তবে রূপ দিতেই ‘টাইগার চ্যালেঞ্জ’ উদ্ভাবনী প্রতিযোগিতার আয়োজন। আয়োজনটি হবে দুইটি পর্বে। বাংলাদেশ পর্বে ফাইনালিস্টদের মধ্যে থেকে একটি উদ্যোগকে সেরা ঘোষণা করা হবে। উদ্যোগ বাস্তবায়নে বিজয়ীকে প্রায় ২ কোটি টাকার বিনিয়োগ সুবিধা দেওয়া হবে। এছাড়াও বৈশ্বিক পর্বে ১৫ লাখ ডলার জেতার সুযোগ থাকছে।

এ পর্বে অংশগ্রহণের জন্য আগামী ২ জুলাই থেকে ৩০ আগস্ট পর্যন্ত চ্যালেঞ্জের ওয়েবসাইটে আবেদন করা যাবে। অনলাইন প্রাপ্ত আবেদন সমূহ এমআইটির বিচারকরা যাচাই করে মোট ১০টি উদ্যোগকে চূড়ান্ত পর্বের জন্য নির্বাচিত করবেন। অক্টোবর মাসে, আন্তর্জাতিক জুরি বোর্ডের সামনে ফাইনালিস্টরা তাদের উদ্যোগ তুলে ধরবেন এবং নির্বাচিত হবেন।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, এখন তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানের কথা যদি বলতে যাই তখন সবার প্রথমে আসে টাইগার আইটি। এটা দেশের লাখ লাখ তরুণের অনুপ্রেরণ এবং উৎসাহের নাম।

দেশের জাতীয় পরিচয়পত্র বা দেশের দশ কোটি নাগরিকের যে বায়োমেট্রিক সিকিউরিটি তার কিন্তু দিয়েছে টাইগার আইটি। প্রতিষ্ঠানটি বিদেশী অনেক বড় বড় প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে প্রতিযোগিতা করে তারা কাজ পেয়েছে। সেটি সক্ষমতার সঙ্গে করেছেও বলে জানান তিনি।

এমন আয়োজনকে স্বাগত জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, টাইগার চ্যালেঞ্জে বিজয়ী উদ্ভাবনী ধারণাকে তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগ থেকেও সহায়তা প্রদান করা হবে।

বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ কায়কোবাদ বলেন , বাংলাদেশের প্রকৃত সম্পদ ঞলো এর তরুণ মেধাবীগোস্টী। আমাদের সীমিত সম্পদ তাদের কল্যানে এমনভাবে খরচ করা উচিৎ যাতে আমরা এগিয়ে যেতে পারি। তিনি আশা প্রকাশ করেন এই আয়োজন মেধাবীদের এগিয়ে যেতে সাহায্য করবে।

টাইগার আইটি আমেরিকার বিজ্ঞানী ইলিয়া নিকিফোরভ তার উপস্থাপনায় কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, ব্লকচেইন, বিগডেটার মতো প্রযুক্তি বাংলাদেশের বিদ্যমান সমস্যা সমাধানে ভাল ভূমিকা রাখতে পারে।

স্বাগত বক্তব্যে টাইগার আইটি ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান জিয়াউর রহমান এই চ্যালেঞ্জ আয়োজনের নেপথ্যের কারণ উল।লেখ করে বলেন এর মাধ্যমে ক্রমাগতভাবে উদ্ভাবনী প্রজন্ম পেতে আমরা এগিয়ে যাবো।

SHARE

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here